আজ ৮ ই মার্চ, আন্তর্জাতিক নারী দিবস - CSLiT | Connecting Technology

আজ ৮ ই মার্চ, আন্তর্জাতিক নারী দিবস

জাতিসংঘ এবার আন্তর্জাতিক নারী দিবসটির প্রতিপাদ্য করেছে নারীর জন্য সমতা, সকলের অগ্রগতি’। সরকারও জাতিসংঘের সঙ্গে সুর মিলিয়ে প্রতিপাদ্য করেছে, ‘অগ্রগতির কথা, নারী পুরুষ সমতা’।
প্রতিবছর আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে নতুন থিম রাখা হয়। তাই এবছরও নারী দিবস উদযাপনের জন্য একটি থিম বেছে নেওয়া হয়েছে। এবারের থিমটি হল – ‘Choose To Challenge’।
৮ মার্চ ইতিহাসের এক উজ্জ্বল দিন। বর্তমানে নানা আড়ম্বরের মধ্য দিয়ে দিনটি পালিত হলেও দিবসটির পেছনের ইতিহাস প্রায় ভুলতে বসেছি আমরা। আজকের লেখায় নারী দিবস কী, কেন পালন করা হয় বিষয়ে আলোকপাত করা হবে।
আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ইতিহাস রচনা করেছেন নারী শ্রমিকরা। ১৮৫৭ সালের ৮ মার্চ নিউইয়র্কের সেলাই কারখানায় নারী শ্রমিকরা উপযুক্ত বেতন, উন্নত কর্মপরিবেশ ও ১০ ঘণ্টা কর্মদিবসের প্রতিবাদে আন্দোলনে নামে। এ আন্দোলন দমনে পুলিশ সেদিন হাজার হাজার নারী শ্রমিকদের মিছিলে গুলি চালায়। ধারণা করা হয়, নারী আন্দোলনের ইতিহাসে এটি ছিল প্রথম গুলি চালানোর ঘটনা। গ্রেফতার হন অসংখ্য নারী শ্রমিক।
এসময়কালেই ১৮৮৯ সালে মহামতি ফ্রেডরিখ এঙ্গেলসের উদ্যোগে প্যারিসে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলন। এ সম্মেলনে জার্মান কমিউনিস্ট নেত্রী ক্লারা জেটকিন নারী-পুরুষের সমানাধিকারের প্রশ্ন উত্থাপন করে বক্তৃতা দেন। এরপর ১৯০৭ সালে স্টুটগার্ডে প্রথম আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে ১৫টি দেশের ৫৯ জন প্রতিনিধি অংশ নেন। এই সম্মেলনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একই সালে ‘আন্তর্জাতিক নারী সংস্থা’(International women’s Bureau) প্রতিষ্ঠিত হলে তিনি তার সম্পাদক নির্বাচিত হন।
১৯০৮ সালের ৮ মার্চ আমেরিকার নিউইয়র্কে শ্রমঘণ্টা কমানো, মজুরি বৃদ্ধি ও জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের ভোটাধিকারের দাবিতে প্রায় ১৫,০০০ নারী ও অভিবাসী শ্রমিকদের অংশগ্রহণে মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। তাদের স্লোগান ছিল ‘Bread and Roses’. ‘#Bread’ ছিল তাদের অর্থনৈতিক নিশ্চয়তার প্রতীক এবং ‘#Roses’ হলো তাদের জীবনমান উন্নয়নের প্রতীক।
এই উত্তাল পরিস্থিতিতে ১৯১০ সালের আগস্ট মাসে #কোপেনহেগেনে সমাজতন্ত্রীদের ‘দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সম্মেলন’ অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে সমাজতন্ত্রী নেত্রী ক্লারা জেটকিন ৮ মার্চ ‘আন্তর্জাতিক নারী দিবস’ পালনের প্রস্তাব দেন।
১৯১৪ থেকে সুনির্দিষ্টভাবে ৮ মার্চ নারী দিবস পালিত হতে থাকে। পরবর্তীতে ১৯৭৫ সালকে জাতিসংঘ ‘নারী বর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করে। তখন থেকেই আনুষ্ঠানিকভাবে ৮ মার্চ কে ‘আন্তজার্তিক নারী দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

Share This:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *